Giveaway 4 (লিজিয়ন)

গতকাল আমার ফেসবুক প্রোফাইল থেকে শুরু করেছি চার নম্বর গিভএওয়ে। ব্র্যান্ডন স্যান্ডারসনের লিজিয়ন সিরিজের প্রথম বই ‘লিজিয়ন’-এর ইবুক প্রকাশনা উপলক্ষ্যে চলছে এই গিভএওয়ে।

অংশগ্রহনের জন্য

১২০ পৃষ্ঠার এই গিভএওয়েতে অংশগ্রহনের জন্য বইটির প্রথম অধ্যায় পড়ে আপনার মনে হতে হবে আপনি বাকি অংশটুকুও পড়তে চান। সাথে আমার লেখার ব্যাপারে আপনার ছোট মতামত জানাতে হবে। তারপর আমি আপনাকে বইটই অ্যাপের প্রোমোকোড পাঠিয়ে দেব। আপনি যেভাবে চান সেভাবে। পুরো সপ্তাহব্যাপী চলবে এই প্রোগ্রাম। কিছু ফেসবুক গ্রুপেও চালানো হবে। পোস্টটি দেখতে এখানে ক্লিক করতে পারেন।

পুরষ্কার বিজয়ীদের তালিকা:

১. শাহরিয়ার মেহেদী

তার মন্তব্য ছিল, “আপনার একটাই অনুবাদ পড়েছি, পার্সি জ্যাকসনের অনুবাদটা। বইটই এ পড়েছিলাম। যদিও এটা কয়েকবছর আগে করেছিলেন, ভালো ছিলো।
আর এটাও ভালো লাগলো, কারণ এটার প্রথমেই টুইস্ট আছে। আর সেটা ভালো করেই ফুটয়ে তুলেছেন। বাকিটা পড়তে তো অবশ্যই ইচ্ছে করছে😁”

২. ফারিয়া আফ্রিন শ্রাবন্তী

আমার পোস্টে প্রথম মন্তব্য প্রদানকারী তিনি। লিজিয়নের প্রথম অধ্যায় পড়ে শ্রাবন্তী বলেছেন, “ভালো লেগেছে
পড়তেও ইচ্ছে করতেসে
অনুবাদ এর মান রেটিং ৮/১০
……আমি যত গুলো অনুবাদ গ্রন্থ পড়েছি.. সেগুলোর সাথে তুলনা করে এটা কোনোটা থেকে অনেক ভালো কোনোটা থেকে একটু কম ভালো…
কিন্তু এটা ভালো লেগেছে কারণ পড়লে মনে হচ্ছে বাংলা কোনো লেখকের বই ই পড়তেসি…”

৩. সামিরা সাদাত

৪. নিশাত আনজুম সেমন্তি

৫. নাজমুল বিপ্লব

৬. মেহেদী হাসান সৈকত

তার মন্তব্যটা ছিল, “না ভাইয়া, অনুবাদে কোন সমস্যা নেই। কিন্তু ২-৪টা বানান সমস্যা মনে হলো। যেমনঃ ঈশ্বর,বিশ্বাস এগুলার জায়গাই (^) চিহ্ন দেখতেসি। হয়তো আমার মোবাইল এর ফন্ট এর জন্যও হতে পারে
আর এক জায়গায় “সাইয়াট্রিস্ট” লেখা ছিল।এটা ভুল হয়তো। কারন পরবর্তী বাক্যে আবার “সাইকিয়াট্রিস্ট” লেখা ছিল 🤔
বাট পুরা জিনিসটাই বুজছি, অনুবাদ একদম পারফেক্ট ❤”

৭. রেজওয়ানুল হাসান

প্রথম অধ্যায় পড়ার পর তার মন্তব্য, “পড়লাম ভাই। অনুবাদ বেশ সাবলীল। গল্পও বেশ চমকপ্রবণ। কিন্তু একটা ব্যাপার লক্ষ্য করেছি “শ্বা” এই জিনিসটা লিখতে গিয়ে ঠিক কি সমস্যা হয়েছে জানি না। বিশ্বাস, নিঃশ্বাস এই শব্দগুলির ক্ষেত্রে বিপত্তিটা চোখে পড়ার মতো ছিল। এছাড়া একটা স্থানে দেখলাম টোবিয়াস নিজেই কথা বলছে অথচ তার উক্তিতে তার নাম এমনভাবে লিখা যেন তার সাথে অন্য কেউ কথা বলছে তাকে স্বমোধন করে। এছাড়া সব ঠিকঠাক আছে। বইটা পড়ার এবং কেনার বেশ ইচ্ছে আছে।”

৮. রাফায়েত আলম রিফাত

রিফাত বলেছেন, “অসাধারণ , অসাধারণ , অসাধারণ। খুব সুন্দর অনুবাদ৷ বাক্যের কী সুন্দর নিপুণ মিল। পুরোটা না পড়া অবধি আর ভালো লাগবে না।”

৯. আনন্দ সাহা দীপ

লিখেছেন, “বেশ ভালো অনুবাদ, কাঠখোট্টা নয়, গল্পটাও ভালো, আগে কি হলো আসলেই জানতে ইচ্ছা করছে।”

১০.এস এম অলি

তিনি লিখেছেন, “গল্পের প্লটটা বেশ সুন্দর। আগ্রহী করে তোলার জন্য যথেষ্ট । আর অনুবাদটাউ বেশ সোজাসাপ্টা। মানে সহজ বাংলা ভাষা। বাকিটুকুও পড়তে আগ্রহী……”

১১. নাইমুর রাহমান দূর্জয়

লিখেছেন, “ অনুবাদ ভালো মানেরই ছিলো মনে হচ্ছে না এটা অনুবাদ। শুরু থেকেই গল্পটা মনকে আটকে রেখেছে। যেন একটা আকর্ষন কাজ করছিলো। অর্ধেক পড়ে মন ভরেনি…. পুরোটা পড়লে মনটা শান্ত হত।🙂”

১২. মোহাম্মদ আশিকুর রহমান নূর

তিনি লিখেছেন, “আমার কাছে অনুবাদ “মোটামুটি চলার মতো” মনে হয়েছে। কিছু শব্দের (ফ্লুইড, বাটলার) বাংলা অনুবাদ করলে ভালো লাগতো। প্রথম দিকে পড়তে খুব একটা ভালো লাগছিলো না। কিন্তু শেষে এসে আগ্রহ তৈরি হয়েছে।”

১৩. তানভীন আহমেদ ফাহিম

তিনি লিখেছেন, “বেশ ঝরঝরে অনুবাদ।বাক্য গঠনও জোস।আপনার ড্রাকুলার গ্রাফিক নভেলটা পড়েছিলাম আগে।বেশ ভালো লেগেছিল।”

অংশগ্রহন করতে পারেন। পাঠকদের সাথে ইন্টারেকশন করতে সবসময়ই ভালো লাগে।

বইটির ব্যাপারে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন https://mithu.info/legion/

Author: MIM

মহিউল ইসলাম মিঠু কৌতুহলী মানুষ। জানতে ভালোবাসেন। এজন্যই সম্ভবত খুব অল্প বয়সেই বইয়ের প্রতি ভালোবাসা জন্মায়। পড়ার অভ্যাসটাই হয়তো ধীরে ধীরে লেখার দিকে ধাবিত করেছিল। বাংলাদেশে প্রথমসারির জাতীয় পত্রিকা, সংবাদপত্র ও ওয়েবসাইটের জন্য লিখেছেন বিভিন্ন সময়। তিনি বাংলাদেশের প্রথম অনলাইন কিশোর-ম্যাগাজিন ‘আজবদেশ’র প্রতিষ্ঠাতা সদস্যদের একজন। অনেকগুলো জনপ্রিয় বই অনুবাদ করে বিভিন্ন স্তরের পাঠকের আস্থা অর্জন করেছেন, জিতে নিয়েছেন ভালোবাসা। তার অনুদিত কিছু বই বিভিন্ন সময় জাতীয় বেস্ট-সেলারের তালিকাগুলোতে ছিল।

Share This Post On

Submit a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Share via
Copy link