গ্যান্ডালফের গল্প

নিজের নামের ব্যাপারে তার বক্তব্য,

“একেক দেশে একেক নাম, শোনো দিয়ে মন,

এলফরা ডাকে মিথর‌্যানডির, বামনরা থারকুন।

যৌবনে নাম অলোরিন ছিল কারও মনে পড়েনা,

উত্তরে সবাই গ্যান্ডালফ বলে, পূর্বে আমি যাইনা।”

  • নাম: গ্যান্ডালফ, অলোরিন, মিথর‌্যানডির, ইসকানুস, থারকুন, দি গ্রে পিলগ্রিম,  স্টর্মক্রো, গ্যান্ডালফ দ্য ওয়ান্ডারিং উইজার্ড
  • টাইটেল: ইস্টার (জাদুকর), দ্য গ্রে, দ্য হোয়াইট, সার্ভেন্ট অফ সিক্রেট ফায়ার, এলফ-ফ্রেন্ড।
  • জন্ম: আরদা (পৃথিবী) যখন সৃষ্টি হল তখন।
  • অস্ত্র: গ্ল্যামড্রিং, নারইয়া, জাদুর লাঠি।

গ্যান্ডালফ দ্য গ্রে

আজ বলব, আমার সবচেয়ে প্রিয় উইজার্ড গ্যান্ডালফকে নিয়ে। লর্ড অফ দ্য রিংস ইউনিভার্সের সবচেয়ে বিখ্যাত উইজার্ড গ্যান্ডালফ। সময়ের শুরু যখন থেকে গ্যান্ডালফের শুরুও তখন থেকে। সে আইনুদের একজন। লর্ড অফ দ্য রিংস ইউনিভার্সের আইনুরা হল আধ্যাত্মিক স্বত্ত্বা। ‍দুই ধরনের আইনু আছে:ভালা আর মায়া। পৃথিবীর সকল সৃষ্টির দেখাশোনা করে ভালারা, আর এই কাজে ভালাদের সাহায্য করে মায়ারা। টোলকিন ইউনিভার্সে সৃষ্টির শুরু থেকেই এভাবেই চলে আসছে। যৌবনে মায়া হিসেবে গ্যান্ডালফের নাম ছিল অলোরিন। মায়াদের মধ্যে তাকে সবচেয়ে জ্ঞানী বলে উল্লেখ করা হয়েছে বিভিন্ন জায়গায়। প্রত্যেক মায়াকে কোনো না কোনো ভালার সহকারী হিসেবে থাকতে হয়। অলোরিন যেসব ভালাদের সাথে ছিল, তারা হল: মানওয়ে, ভারদা, ইমরো, নিয়েনা।

থার্ড এজে যখন মিডল আর্থে সাউরন আবার মাথাচারা দিয়ে উঠছিল তখন ভালাদের রাজা মানওয়ে, অলোরিনকে পাঠালো মিডলআর্থকে অশুভ শক্তির হাত বাঁচানোর জন্য। কথিত আছে, অলোরিন প্রথমে মিডলআর্থে আসতে চাচ্ছিল না কারন ডার্কলর্ড সাউরনকে ভয় পায় সে। তখন মানওয়ে বলল, “তুমি ডার্কলর্ডকে ভয় পাও, এইজন্যই তোমার আরও বেশি যাওয়া দরকার।”

মিডলআর্থে এসে আলোরিন এক বুড়ো জ্ঞানী জাদুকরের বেশ ধরল, আর নাম নিল গ্যান্ডালফ দ্য গ্রে। এভাবেই মিডলআর্থে দুই হাজার বছরের বেশি সময় কাটাল। থার্ড এজের ৩০১৯ সালে সাউরনের চূড়ান্ত পতন ঘটানোর পর মিডলআর্থ ছাড়ল।

হবিটদের ব্যাপারে তার মত জ্ঞান আর কারও নেই। পৃথিবীতে যত ভাষা আছে, সেসব ভাষায় যত ম্যাজিক স্পেল আছে সব তার জানা। বামনদের কিংবন্তীতুল্য দূর্গনগরী এরাবর। এই এরাবর পূণরুদ্ধরের পেছনে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল গ্যান্ডালফের। ড্রাগন স্মাগকে বিদায় করার মাধ্যমে মিডলআর্থকে আরও দীর্ঘমেয়াদী, আরও বড় এক বিপদ থেকে রক্ষা করে সে।

বিভিন্নসময় ঈগলদের সাথে গ্যান্ডালফের একটা গভীর সখ্যতা লক্ষ্য করা যায়। এই সখ্যতার কারন হল, একবার ঈগলদের রাজা বিষাক্ত তীর দ্বারা গুরুতর আহত হয়। তখন গ্যান্ডালফ তাকে মুত্যুর হাত থেকে রক্ষা করছিল। সেই থেকে গ্যান্ডলেফের সাথে ঈগলদের এত প্রেম-ভালোবাসা। অনেকবার ঈগলরা গ্যান্ডালফ আর তার বন্ধুদের নিশ্চিত মৃত্যুর হাত থেকে বাঁচিয়েছে।

৩০১৯ সালের ২৫ জানুয়ারি ব্যালরগকে আটকাতে গিয়ে মারা যায় গ্যান্ডালফ। কিন্তু তার কাজ তখনও শেষ হয়নি সেজন্য ভালারা তাকে আবার ফেরত পাঠান। গ্যান্ডালফ দ্য গ্রে ফিরে আসে গ্যান্ডালফ দ্য হোয়াইট হিসেবে। কেন ফেরত পাঠানো হল সেটা নিয়ে অন্যদিন কথা হবে। দি হবিট এবং দি লর্ড অফ দ্য রিংস সিরিজের মুভিগুলোতে, এই গ্যান্ডালফ চরিত্রে অভিনয় করে স্যার ইয়ান ম্যাকলেন নিজেই এক জীবন্ত কিংবদন্তী হয়ে গেছেন।

Author: MIM

মহিউল ইসলাম মিঠু কৌতুহলী মানুষ। জানতে ভালোবাসেন। এজন্যই সম্ভবত খুব অল্প বয়সেই বইয়ের প্রতি ভালোবাসা জন্মায়। পড়ার অভ্যাসটাই হয়তো ধীরে ধীরে লেখার দিকে ধাবিত করেছিল। বাংলাদেশে প্রথমসারির জাতীয় পত্রিকা, সংবাদপত্র ও ওয়েবসাইটের জন্য লিখেছেন বিভিন্ন সময়। তিনি বাংলাদেশের প্রথম অনলাইন কিশোর-ম্যাগাজিন ‘আজবদেশ’র প্রতিষ্ঠাতা সদস্যদের একজন। অনেকগুলো জনপ্রিয় বই অনুবাদ করে বিভিন্ন স্তরের পাঠকের আস্থা অর্জন করেছেন, জিতে নিয়েছেন ভালোবাসা। তার অনুদিত কিছু বই বিভিন্ন সময় জাতীয় বেস্ট-সেলারের তালিকাগুলোতে ছিল।

Share This Post On

Submit a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Share via
Copy link